ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে নয়নতাঁরা ফুলের Top উপকারিতা

ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে নয়নতাঁরা ফুলের Top উপকারিতা

আমাদের সকলেরই ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে নয়নতাঁরা ফুলের উপকারিতা সর্ম্পকে জানা উচিৎ। আমরা সকলেই যেমন সুন্দর ত্বকের অধিকারি হতে চাই ঠিক তেমনি এই সুন্দর ত্বকের মূলে নয়নতাঁরা ফুলের উপকারিতা এবং দৈনন্দিন জীবনে এর ব্যবহার নিয়ে Top Chakri.com আপনাদের সামনে হাজির হয়েছে।

ত্বকের সৌন্দর্য বাড়াতে নয়নতাঁরা ফুলের গুনাগুন:

ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে নয়নতাাঁরা ভেষজ গুনে অনন্য। এছাড়াও ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, লিউকেমিয়া (ইংরেজিতে Leukemia), রক্তপ্রদর, মধুমিয়া, ইত্যাদি রোগে এই গাছের মূল, ফুল, পাতা ও শিকড় কাজে লাগে। আমরা জানি আর্য়ুবেদ শাস্ত্রে এই গাছের বিভিন্ন উপকারিতার কথা বলা হয়েছে।

ডায়াটিস রোগে এ গাছের পাতা ২ (দুই) গ্রাম ও তেলাখোচা থেতো করে পরিমানমত পানিতে সিদ্ধ করে ১৫ থেকে ৩০ দিন সেবন করলে উপকার পাওয়া যায়। লিউকোমিয়া, মধুমেহ ও উচ্চ রক্তচাপে মূলসহ নয়নতাঁরার কসপাত নিয়ম অনুযায়ী খেলে সুফল পাওয়া যায়।

নয়নতাঁরা আমাদের অতি পরিচিত ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করন একটি ফুল। কারন পরিকল্পিত বাগান ছাড়াও এই ফুলটি ছড়িয়ে আছে প্রায় সাড়া দেশে। কিন্তু এর জন্মস্থান সুদুর ওয়েস্টইন্ডিজে। সেখান থেকে কখন এবং কবে আমাদের দেশে এসেছে তা আজও জানা যায়নি।

গাছটি আমাদের প্রকৃতির সঙ্গে এমনভাবে মিশে আছে যে, এখন আর বিদেশি বলে মনে হয়না। বর্তমানে সুন্দরবনের আশপাশ ছাড়াও দেশের প্রায় অনেক জায়গাতে এই গাছ প্রাকৃতিকভাবে জন্ম নিচ্ছে।

ত্বকের সৌন্দর্য বাড়াতে এটি ছোট আকারের গাছ এমনকি গুল্ম শ্রেণীর চেয়েও খাঠ। মাত্র ৬০ থেকে ৮০ সেন্টিমিটার উচু হতে পারে, পাতা মসৃন ও আয়তাকার। ৫ তেকে ৭ সেন্টিমিটার লম্বা হতে পারে এই গাছ। নয়নতাঁরার বংশবৃদ্ধি বীজের মাধ্যমে। বীজ অনেক প্রাকৃতিক দুর্যোগ উপেক্ষা করে নিজেকে টিকিয়ে রাখতে পারে। গাছটি আগা-গোড়ায় ওষধি গুনে ভরা।

পৃথিবীতে যা কিছু সৃষ্ঠি হয়েছে সবকিছু মানুষের নিমিত্তে। প্রানীজগৎ এবং উদ্ভিদ জগৎকে আল্লাহপাক একমাত্র মানুষের সেবার জন্য দান করেছেন। মানুষ উদ্ভিদ হতে যে উপকারগুলি পায় তার মধ্যে নয়নতাঁরার গাছ ও ফুল চিকিৎসার জন্য অন্যতম। এই নয়নতাঁরা গাছ ও ফুল থেকে আমরা অনেক পুষ্টিগুন ও ওষধিগুন গ্রহন করে থাকি। আজকে আমরা আলোচনা করব নয়নতাঁরা গাছের এমনই কিছু উপকারের কথা। আশা করি আপনারা পুরো বিষয়টি পড়বেন।

ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে নয়নতাঁরা ফুলের উপকারিতা

১। ত্বকের উজ্জলতা বাড়াতে: ত্বকের উজ্জলতা বাড়াতে এই গাছের অবদান এতই যে তা আপনি কথনও কল্পনাও করতে পারবেন না। কয়েকটি এই গাছের ফুল নিন এবং পনিতে আস্ত করে ধুয়ে পরিস্কার করুন। এর সাথে যুক্ত করুন অ্যালোভেরা জেল, (বাজারের কেনা জেল হলেও চলবে) ফুল এবং জেল একসাথে পিশিয়ে একটি পেস্টে পরিনত করুন। এবার এই পেস্ট আপনার মুখে লাগান। ১০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন হল্কা কুসুম গরম পানি দিয়ে। এবার নিজেই নিজের চেহারা আয়নাতে দেখুন। প্রমান করে দেখুন আপনার সুন্দর মুখখানি আগের চেয়ে অনেক বেশি উজ্জল হয়েছে।

২। ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে: ডায়াবেটিসের ক্ষেত্রে নয়নতাঁরার ভূমিকা অন্যতম। এই গাছের ফুল-মূল শুকনো হলে এক গ্রাম আর কাঁচা হলে দুই গ্রাম সংগ্রহ করে নিন। রাতে আনুমানিক এক কাপ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে পানিটুকু ছেকে নিয়ে জ্বাল করে আঁধাকাপ করে নিন। এই পানিটুকু দুইভাগ করে সকাল এবং রাতে পান করুন। এতে ডায়াবেটিস রুগিরা ওষুধ কিনে খাওয়ার চেয়ে, অনেক ভাল ফল পাবেন।

৩। ক্রিমি রোগের ক্ষেত্রে: ক্রিমি রোগ ভাল হওয়ার জন্যও এই নয়নতাঁরার ফুল-মূল ও পাতা বিশেষ কার্যকরি। উপরিউল্লেখিত নিয়মে এক সপ্তাহ পান করলে ক্রিমি রোগ ভাল হয়। তবে বাচ্চাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। এছাড়াও মেধাশক্তি বৃদ্ধিতে এ গাছের ভূমিক অপরিসীম।

৪। লিউকেমিয়া রোগে: লিউকেমিয়া রোগের ক্ষেত্রে এ গাছের অবদান অপরিসীম। এটি একটি রক্তবহু রোগ। এ রোগের ফলে মহিলারা সাধারনত দুর্বল হয়ে পড়ে। এই রোগ ভাল হতে নয়নতাঁরা পুরোপুরি সক্ষম।

৫। রক্ত চাপের ক্ষেত্রে: উচ্চ রক্ত চাপের ক্ষেত্রে এ গাছের উপকারিত বলে শেষ করা যাবেনা। উক্ত নিয়মে এক মাস সেবন করলে এই সমস্যা অল্প দিনের মধ্যে ভাল হয়ে যাবে ইনশাল্লাহ।

৬। গিটে ব্যাথা: যাদের গিড়ায় গিড়ায় ব্যাথা তারা এই গাছের পাতা , ফুল ও মূল উক্ত নিয়মে পান করলে অল্প কয়েক দিনের মধ্যে বাথের ব্যাথা ভাল হয়ে যাবে। এছাড়াও শরীরের কোথাও যদি কেটে যায় তাহলে এই ফুলের রস উক্ত কাটা যাওয়া স্থানে লাগানো মাত্র রক্ত ক্ষরন বন্ধ হয়ে যাবে।

৭। অনিয়মিত মাসিক শ্রাব: এটি একটি জটিল রোগ, এ রোগে অনেক মহিলা মাসের পর মাস ভূগে থাকেন। যে সমস্ত মহিলাদের উক্ত সমস্যা আছে তারা এই গাছ ব্যবহার করলে, বিশ্বাস করুন উক্ত সমস্যা থেকে চিরতরে মুক্তি পাাবেন।

৮। ক্যান্সার প্রতিরোধে: ক্যান্সার প্রতিরোধে এযাবৎ কালে যত প্রকার ভেষজ ওষুধি গাছ আবিস্কার হয়েছে তার মধ্যে এই নয়নতাঁরার ভূমিকা সবচেয়ে বেশি। এই গাছ দিয়ে বর্তমান বিশ্বে অনেক ওষুধ কোম্পানি ক্যান্সারের ওষুধ আবিস্কার করতে সক্ষম হয়েছে। এই গাছ ব্যবহার করলে উক্ত মরনব্যাধি রোগও ধারের কাছে আসতে পারবেনা।

নয়নতাঁরা ফুলের প্রস্তত প্রনালি:

প্রস্তত প্রনালি: নয়নতাঁরা গাছের পাতা, ফুল এবং মূল কাঁচা হলে দুই গ্রাম আর শুকনো হলে এক গ্রাম সংগ্রহ করে নিন। রাতের বেলায় এক কাপ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে উক্ত পানি ছেকে নিয়ে জ্বাল করে আঁধা কাপ করে নিন। এই পানি সকাল এবং রাতে পান করুন।

আপনারা কি নয়নতাঁরা গাছের এত বেশি গুনাগুনের কথা আগে জানতেন ? যদি কোন গুনাগুনের কথা আপনারা জানেন তাহলে কমেন্ট বক্সে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। আপনারা অনেকে নয়নতাঁরা গাছের এত গুনাগুন এবং এর ব্যবহার জানেন না বলেই দৈনন্দিন জীবনে এই গাছের ব্যবহার করতে পারেন না।

তাহলে চলুন আমরা আজ থেকে নয়নতাঁরা গাছের ব্যবহার শুরু করি। আমার দেওয়া এই তথ্যগুলির মধ্যে যদি কোন প্রশ্ন বা সন্দেহ থাকে তাহলে কমেন্ট বক্সে অবশ্যই কমেন্ট করে জনাতে ভূলবেননা। আমি চেষ্টা করব আপনাদের প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার।

প্রিয় ভাই ও বোনেরা, আশা করি আমার দেওয়া এই তথ্যগুলি আপনাদের ভাল লাগবে। ভাল লাগলে আমার পোস্টটিতে Like এবং Share করে অন্যদের কাছে পৌছে দিন। যাতে অন্যেরাও আপনাদের মত উপকৃত হতে পারে।

কামনা করি আপনারা সকলেই ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন, আজকের মতে এখানেই শেষ করছি। “আল্লাহ হাফেজ”

ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে নয়নতাঁরা ফুলের উপকারিতা এছাড়াও বাংলার সকল সরকারি-বেসরকারি এবং এনজিও চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১ আমাদের ওয়েবসাইট Top Chakri.com এ প্রকাশ করা হয়। তাই নতুন সকল চাকরির আপডেট পেতে আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন এবং Facebook পেজটিতে Like দিন।

11 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here